মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৯ August ২০১৯

মাননীয় মন্ত্রী

জনাব ইমরান আহমদ, এমপি

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিযুক্ত মাননীয় মন্ত্রী এবং ২৩২, সিলেট-৪ (জৈন্তাপুর, গোয়াইন ঘাট, কোম্পানিগঞ্জ) আসনের ৬ বারের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ ১৯৪৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ভারতের আম্বালায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম ক্যাপ্টেন রশিদ আহমদ এবং মাতা মরহুম কমরুন নেছা।

 

ইমরান আহমদ ১৯৬৪ সালে ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট এবং ১৯৬৬ সালে উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। তিনি ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভূগোল বিষয়ে স্নাতক সম্মান ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ফেব্রুয়ারি ১৯৭০ সনে জেমস্ ফিনলের চা বাগানে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেন। বর্তমানে তিনি শ্রীপুর টি গার্ডেন' নামে নিজের চা বাগান পরিচালনা করছেন।

 

 তিনি ১৯৮৬ সন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতি ও জনসেবার সঙ্গে সরাসরি জড়িত আছেন। ইমরান আহমদ তৃতীয় (১৯৮৬), পঞ্চম (১৯৯১), সপ্তম (১৯৯৬), নবম (২০০৮), দশম (২০১৪) এবং একাদশ জাতীয় সংসদ (২০১৮) নির্বাচনে সিলেট-৪(জৈন্তাপুর, গোয়াইনঘাট, কোম্পানিগঞ্জ) আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি পঞ্চম জাতীয় সংসদে বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। তিনি সপ্তম জাতীয় সংসদে সরকারি প্রতিষ্ঠান কমিটির সভাপতি এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। নবম জাতীয় সংসদে লাইব্রেরি কমিটি এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন। দশম জাতীয় সংসদে তিনি ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালনকালীন সময় মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করেন। তাঁর সক্রিয় উদ্যোগে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে বাংলাদেশের একমাত্র সিলেট ইলেক্ট্রনিক সিটি (প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হাইটেক পার্ক) প্রতিষ্ঠিত হয়।

 

ইমরান আহমদ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত। তিনি রাংপানি ক্যাপ্টেন রশিদ হাইস্কুল এন্ড কলেজ, ইমরান আহমদ মহিলা ডিগ্রি কলেজ, গোয়াইনঘাট ইমরান আহমদ বালিকা বিদ্যালয়, কোম্পানীগঞ্জে ইমরান আহমদ কারিগরি কলেজ এর প্রতিষ্ঠাতা। এছাড়াও তিনি গোয়াইনঘাট কলেজ, জৈন্তিয়া ডিগ্রি কলেজ, সারিঘাট উচ্চ বিদ্যালয়, সালুটিকর কলেজ, আলীরগাঁও কলেজ, হাজী সোহরাব আলী স্কুল এন্ড কলেজ, রুস্তমপুর কলেজ, এবং হযরত শাহজালাল (রহ.) ডিগ্রি কলেজে দাতাসদস্য সহ বিভিন্ন সামাজিক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত।

 

 তিনি বাংলা ভাষার পাশাপাশি ইংরেজি ও উর্দূ ভাষায় দক্ষ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে তিনি দক্ষিণ কোরিয়া এবং কাতার সফর করেন। তাছাড়া বিভিন্ন সময় সরকারিভাবে ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, শ্রীলংকা, যুক্তরাষ্ট্র, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, চীন, অষ্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, ত্রিনিদাদ, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান, সিঙ্গাপুর, উগান্ডা, দক্ষিণ আফ্রিকা, জাম্বিয়া, ক্যামেরুন, সুইজারল্যান্ড, কলম্বিয়া এবং হল্যান্ড সফর করেছেন। এছাড়া ব্যক্তিগত ভাবে ভূটান, যুক্তরাজ্য, মালেয়েশিয়া, জাপান, ফ্রান্স, কানাডা, দুবাই সফর করেছেন। দেশ ভ্রমণ ছাড়াও সমাজসেবা তাঁর অন্যতম শখ।

 

বিবাহিত জীবনে ইমরান আহমদ এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী ড. নাসরিন আহমদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। বর্তমানে নাসরিন আহমদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) হিসাবে নিয়োজিত আছেন।


Share with :

Facebook Facebook