মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৬ মে ২০১৬

আমাদের সম্পর্কিত

বাংলাদেশ হতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রপ্তানী শুরু হয় ১৯৭৬ সাল থেকে। সময়ের সাথে তা ক্রমাগত বৃদ্ধি পেতে থাকে। বর্তমানে বিশ্বের ১৬০ টি দেশে প্রায় ৯৩ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশি কর্মী জীবিকার প্রয়োজনে কর্মরত আছে। এসব বাংলাদেশিরা কর্মক্ষেত্রে মেধা, যোগ্যতা ও দক্ষতার ছাপ রেখে চলেছেন। তাদের কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে অর্জিত রেমিটেন্স (বৈদেশিক মুদ্রা) দেশের উন্নয়ন তথা অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রাখছে। প্রবাসী কর্মীদের অবদানের বিষয়টি বিবেচনা করে তাদের এবং দেশে বিদেশে কর্মীদের পরিবার পরিজনকে সাহয্য সহযোগিতা কিংবা উদ্ভুত সমস্যার সমাধান কল্পে তথা সার্বিক কল্যাণমূলক কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষে সরকার ১৯৯০ সালে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ তহবিল গঠন করে। বর্তমানে উহা “ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড” নামে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে।

উচ্চ পর্যায়ের আন্তঃ মন্ত্রণালয়  প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত পরিচালনা বোর্ডেও মাধ্যমে এই তহবিল পরিচালিত হয়। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিবের সভাপতিত্বে , স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, বিএমইটি এবং বায়রা-এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে এ বোর্ড গঠিত হয়েছে।

19(1) of Emigration Ordinance-1982 ধারা এবং বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন ২০১৩ এর 47 নং অধ্যায় অনুযায়ী প্রত্যেক অভিবাসী কর্মী বাধ্যতামূলকভাবে সরকার নির্ধারিত নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করে, যা দ্বারা সরকার কল্যাণ তহবিল গঠন করেছে। ‘ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড’ একটি পরিচালনা বোর্ড দ্বারা পরিচালিত হয়। অভিবাসী কর্মী ও তাঁর পরিবারকে এ তহবিল হতে সহায়ত প্রদান করা হয়।


Share with :
Facebook Facebook